ক্যানসার প্রতিরোধে দারুন কার্যকরী স্কোয়াশ

স্কোয়াশ একটি বিদেশী সব্জি হলেও এটি এখন আমাদের দেশের বাজারে পাওয়া যায়। স্কোয়াশে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্রাকৃতিক উপাদান। সবুজ, হলুদ কিংবা সাদা রঙয়ের স্কোয়াশ নানা ধরণের রোগ থেকে আমাদের রক্ষা করে থাকে। শরীরের মধ্যে অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল ও অ্যান্টি ফাঙ্গাল উপাদান সরাসরি যুক্ত হয় স্কোয়াশের মাধ্যমে।

 

 

স্কোয়াশে রয়েছে ভিটামিন এ, সি, ই ও ভিটামিন বি-৬। স্কোয়াশে নায়াসিন, থায়ামিন, প্যানথোটোমিন এসিড রয়েছে। এছাড়াও অনেক মিনারেলস রয়েছে। যেমন ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম, খনিজ, ম্যাঙ্গানিজ, কপার, ফসফরাস, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ক্যারোটিনয়েড এবং অন্যান্য অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটরি ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট উপাদান। তাই আপনি প্রতিদিনের ডায়েটে স্কোয়াশ রাখতে পারেন।

 

 

চলুন জেনে নেই বিদেশী সব্জি স্কোয়াশের উপকারিতাগুলো-

হার্টের যত্নে উপকারী

স্কোয়াশ শরীরের অক্সিজেন বৃদ্ধির মাধ্যমে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গের কর্মক্ষমতার উন্নতি ঘটায়। সেই সঙ্গে হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের সম্ভাবনা অনেকাংশে কমিয়ে দেয়। এই সবজিতে প্রচুর পরিমানে পটাশিয়াম রয়েছে। স্কোয়াশে থাকা এই খনিজপদার্থটি রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে।

 

 

ক্যানসার প্রতিরোধে

স্কোয়াশে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা দেহের ফ্রি র্যাডিকেলস দূর করে। এর বিটাক্যারোটিন ক্যান্সারের ক্ষতিকর পদার্থ থেকে দূরে রাখে আমাদের। স্কোয়াশ ফুসফুস ক্যান্সারের সম্ভাবনাকে কমিয়ে দিতে সাহায্য করে।

 

 

চোখের যত্নে

স্কোয়াশ শরীরে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ও বিটা ক্যারোটিন সরবরাহ করে থাকে। এতে রয়েছে বিটা লুটেইন। লুটেইন চোখের দৃষ্টি বাড়াতে সহায়তা করে। এক কাপ স্কোয়াশে ২৪০০ মাইক্রোগ্রাম লুটেইন রয়েছে।

 

 

হজমশক্তি বাড়াতে

স্কোয়াশে রয়েছে অনেক পরিমাণে ডায়েটারী ফাইবার। আঁশের চমৎকার উৎস এই সবজিটি আমাদের হজমশক্তি বাড়ায়, যা অনেক রোগ থেকে আমাদের দূরে রাখে। কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকেও মুক্তি দেয়। ক্যালোরির আধিক্য নেই বলে স্কোয়াশ ওজন কমাতে বিশেষ উপকারী।

 

 

ত্বকের যত্নে

স্কোয়াশ ত্বকের নানা সমস্যাও দূর করে। স্কোয়াশে থাকা ভিটামিন ‘সি’ অকালে ত্বকের বুড়িয়ে যাওয়া প্রতিরোধ করে।। চুলের জন্যও ভীষণ উপকারী।

 

 

ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করে

রক্তে চিনির মাত্রা বাড়তে দেয় না স্কোয়াশ। স্কোয়াশে কম পরিমাণে গ্লাইসেনিক ইনডেক্স থাকে। যা সুগার লেভেলকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে। তাই ডায়বেটিসের কোনো সম্ভাবনা থাকলে এ সবজিটি খেতেই পারেন।

 

 

সচেতনতা

হাইপার টেনশনের রোগীদের জন্য স্কোয়াশ খুবই ভালো। কিন্তু যারা হাইপার টেনশনের রোগী নন, তারা এ সবজিটি অতিরিক্ত মাত্রায় কোনোভাবে খাবেন না। আর আপনার দেহে কোনো রকম জটিল রোগ থাকলে এ সবজিটি খাওয়া উচিত হবে কি না, সে সম্পর্কে চিকিৎসকের সুপরামর্শ নিতে হবে।

 

তথ্যসূত্রঃ ফারমস এন্ড ফারমারস

ADVERTISE