মাত্র ১০ হাজার টাকা খরচে বরই বিক্রি ২ লাখ ৮০ হাজার টাকার

বাংলাদেশে টক এবং মিষ্টি বরইয়ের চাহিদা প্রচুর। গাজীপুরের শ্রীপুরে গত কয়েক বছর ধরে বাণিজ্যিকভাবে বরইয়ের আবাদ হচ্ছে। প্রথম দিকে আপেল কুল ও বাউকুলের ব্যাপক চাষাবাদ ছিল।

 

 

সময়ের ধারাবাহিকতায় বউ সুন্দর ও টক বরই চাষেও ঝুঁকছেন চাষিরা। কম খরচে অধিক ফলনে বরইয়ের উৎপাদন চাষিদের বাণিজ্যের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এতে লাভবান হচ্ছেন তারা।

 

 

শ্রীপুরের বরই যাচ্ছে ঢাকা, সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। মিষ্টি বরইয়ের মতো টক বরইয়েরও ভালো দাম পাচ্ছেন চাষিরা। ফলে টক বরইয়ের বাণিজ্যিক চাষও শুরু হয়েছে।

 

 

ফাগুন মাসের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত গাছে বরইয়ের ফলন আসবে বলে জানিয়েছেন চাষিরা। বরই চাষে শ্রীপুরের চাষিরা বিপ্লবের সম্ভাবনা দেখছেন।

 

 

শ্রীপুর পৌরসভার উজিলাবো গ্রামের বাগান মালিক কবির হোসেন মৃধা বলেন, প্রায় ১০ বছর ধরে টক ও আপেল কুলের চাষ করছি। শ্রীপুরের আবহাওয়া ও মাটি বরই চাষের জন্য উপযোগী।

 

 

যাদের চাষ করার মতো জমি রয়েছে তারা বরই চাষ করলে আমার মতো সফল হবেন। নতুন চাষিরা এগিয়ে আসলে বরই চাষে বিপ্লব ঘটানো সম্ভব। ইতোমধ্যে আমার সফলতা দেখে আশপাশের গ্রামের অনেকে পরামর্শ নিয়ে বরই বাগান করেছেন এবং তারাও লাভবান হচ্ছেন।

 

 

ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার বামদি গ্রামের মৃত জনাব আলী ফকিরের ছেলে ফল ব্যবসায়ী আব্দুল কুদ্দুস বলেন, এ বছর কেওয়া গ্রামে একটি বরই বাগান কিনেছি দুই লাখ ৭০ হাজার টাকায়।

 

 

দৈনিক পাঁচ জন শ্রমিক বরই নামিয়ে থাকেন। ঢাকা, মাওনা, সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বরই বিক্রি করি। আগামী দুই মাস পর্যন্ত মৌসুমের পুরো সময় বরই বিক্রি করবো।

 

 

পাঁচ জন শ্রমিক দুই মাসে বাগানে শ্রম দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। আমি এই ব্যবসা করে লাভবান হয়েছি।

 

তথ্যসূত্রঃ subhesadik24.

Add a Comment

Your email address will not be published.

CAPTCHA